বরগুনায় ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুইগ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৮; গাড়ি ভাংচুর

বরগুনার বেতাগীতে আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে একের পর এক সংঘাত, সংঘর্ষ ও হামলা।২০ মার্চ উপজেলার বুড়ামজুমদার ইউনিয়নের ওরস মাহফিল.....

Dipta DasDipta Das
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  09:00 PM, 21 March 2021
বরগুনার বেতাগীতে আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে একের পর এক সংঘাত, সংঘর্ষ ও হামলা।২০ মার্চ রাত ১২ টায় উপজেলার বুড়ামজুমদার ইউনিয়নের একটি ওরস মাহফিল চলাকালে হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে

বরিশাল দর্পণ ডেস্ক :    বরগুনার বেতাগীতে আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে একের পর এক শুরু হয়েছে সংঘাত, সংঘর্ষ ও হামলা। শনিবার (২০ মার্চ) রাত ১২ টায় উপজেলার বুড়ামজুমদার ইউনিয়নের দক্ষিণ করুণা নামক স্থানে একটি ওরস মাহফিল চলাকালে হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে আহত হন ৮জন ও ভাংচুর করা হয় ৩টি মটোর বাইক।

অভিযোগ উঠেছে ওই ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী সৈয়দ গোলাম রব শুক্কুর মীরের বিরুদ্ধে। আর এই অভিযোগ করেন ওই ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মোস্তাফিজুর রহমান মিলন।

এলাকায় খোঁজ নিলে জানা যায়, শনিবার রাতে স্থানীয় জনৈক এক দরবেশ এর মাজারে ওরশ মাহফিল চলছিলো ওইদিন রাত ১২ টার দিকে মাজারে ওরস মাহফিলে আসা ভোটারদের সাথে দেখা করার উদ্দেশ্যে আসেন ওই ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান মিলন, তখন বর্তমান চেয়ারম্যান শুক্কুর মীর একই স্থানে উপস্থিত ছিলেন ফলে শুক্কুর মীরের নির্দেশে তার সমর্থক দিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলনকে বাধা দেওয়া হয়। এক পর্যায়ে দুই গ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান মিলন বলেন, আমাকে সাধারণ ভোটারদের কাছে যেতে বাধা দেওয়া হয়েছে এবং আমার ৭-৮ জন লোকদের (সমর্থকদের) পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। বেশ কয়েকটি হুন্ডা ভাংচুর করে পুকুরে ফেলে দেয়া হয়। এসব কিছু আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী শুক্কুর মীরের নির্দেশে তার সমর্থক গোলাম সরোয়ার খান ও তার সহযোগীরা এ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড পরিচালনা করেন।

 

সংঘর্ষে আহতরা হলেন- রাজন, সাব্বির, মনিরুল, তুহিন, কাওসার সিকদার,সাইফুল ইসলাম প্রমুখ তারা সবাই ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়ে বর্তমানে বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

আ’লীগ মনানীত প্রার্থী সৈয়দ গোলাম রব শুক্কুর মীর বলেন, এ সম্পূর্ণ অভিযোগ সাজানো নাটকমাত্র, আর যাদের কথা বলা হয়েছে তারা আমার সমর্থকতো দূরের কথা আওয়ামী লীগেরই কর্মী না। আমি ব্যাক্তিগত ভাবে এ সংঘর্ষ ও ভাংচুরের ব্যাপারে কিছু জানিনা।

এ ব্যাপারে বেতাগী থানার ওসি কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, বিষয়টি মৌখিকভাবে শুনেছি, লিখিত কোন অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

আপনার মতামত লিখুন :